খারাপ তো থাকবিই,
লোকে তো চাইবেই তুই খারাপ থাক।
তবে মাঝে মাঝে একটু ভালোও থাকিস।

মাঝে মাঝে ভীড়ের মাঝে
নিজের জন্যে কিনে নিস একটা-দুটো বেলী ফুলের মালা,
হাতে জড়াবি বলে,
কিংবা নিজেকে কিনে দিতে পারিস একতোড়া দোলনচাঁপা,
শুধুই নিজেকে,
যার সুগন্ধে খুঁজে পাবি নিজেরই নিশ্বাস।

মাঝে মাঝে সন্ধ্যে হলে
নীড়ে ফেরা পাখিদের মতো নিয়ম মাফিক
ফিরিস না ঘরে,
বরং এক ঠোঙা বাদাম কিনে বসে পড়িস কোনো গাছের তলে।
নিজের সাথে নিজেরও অনেক গল্প থাকে বুঝলি তো?
নিজের সাথে নিজের গল্পগুলো সেরে নিস সেই ফাঁকে।

মাঝে মাঝে রাত নামলে তুইও নেমে পড়বি ফুটপাথ ধরে,
থামবি কোনো চা-দোকানে,
লোকে তাকাবে; মুখও বাঁকাবে;
তুই কিছুতে মাখবি না ওসব তোর স্বভাবে।

মাঝ রাত্তিরে জোছনা তো সবাই খোঁজে,
তুই না হয় নিজেকে খুঁজিস আঁধারের ভাঁজে,
জানিস তো আলো কেমন বহুরূপী?
মাঝে মাঝে নিজেকে তাই আঁধারে লুকোবি।

মাঝে মাঝে এক হাটু সময়ে পা ডুবিয়ে বসে রবি,
সব ভুলে একের পর এক কাগজের নৌকো বানাবি,
সারাক্ষণ শুধু কাজ আর কাজই জরুরি নয়,
মাঝে মাঝে কিছু অকাজও করতে হয়।


কবিঃ বাংলাদেশের শেষ প্রান্তের বিখ্যাত এক জেলা ঠাকুরগাঁয়ে তার জন্ম। শৈশব থেকেই কবি নন, তবে জীবন তাকে উপহার দিয়েছে অনেক কবিতা। জীবনের প্রয়োজনে প্রিয় স্বদেশ আর শৈশবের টাঙ্গন থেকে দূরে আছেন এই কবি।
নিপা খান এ প্রজন্মের কবি। শব্দের বেড়াজালে বেঁধে নিয়েছেন প্রতিবাদ আর প্রতিশ্রুতির হাতিয়ার গুলোকে। “বুনো মেঘ” “অর্ধেক দেবদারু” তার উল্লেখযোগ্য কাব্যগ্রন্থ।

1 COMMENT

  1. মাঝরাতে ফুটপাত যখন ঘুমিয়ে পড়ে,
    ল্যাম্পপোস্ট যখন স্নেহ বিলায়…
    কবি তখন নেমে যান রাস্তার ধারে
    হঠাত উদয় হওয়া চায়ের দোকানে –
    আধো ধূমায়িত কাপে চুমক দেন জীবনের দীর্ঘশ্বাস –

মতামত দিনঃ